কন্সট্রাকশন এবং বাজেট ফোকাসড ডিজাইন

কেন? 

যে কোন কন্সট্রাকশনের কাজই অনেক স্ট্রেস-ফুল। বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে স্ট্রেসটা আরও একটু বেশি। কি করতে হবে আর হবে না, সেটা বুঝতে না পারাটা একটা বড় সমস্যা। অভিজ্ঞতার অভাব একটা বড় সমস্যা। আমরা একের পর এক কন্সট্রাকশন শেষ করার পরেও টুকটাক ভুল করে ফেলি, নতুন কিছু শিখি।

 

আর আপনি যদি জীবনের প্রথম বাড়ি বানাতে আসেন; সেটা যে আরও অনেক জটিল হবে সেই ব্যাপারে নিশ্চিত থাকতে পারেন। প্রতিদিন অনেক অনেক ভেন্ডরের সাথে কথা বলতে হবে, তাঁদের পেমেন্ট করতে হবে, ম্যাসেজের রিপ্লাই এবং ম্যানেজ করে চলতে হবে। এই সেক্টরের বড় একটা অংশ আসলে একদল অসৎ, আনকমিটেড এবং অশিক্ষিত লোকজন নিয়ন্ত্রণ করে।

 

ফলাফল - 
 

👉🏽 সময়মত কাজ শেষ না হওয়া 
👉🏽 খরচ বেড়ে যাওয়া এবং কখনো সেটা চিন্তাতীত-ভাবে বেড়ে যাওয়া 
👉🏽 বাড়ির কোয়ালিটি খারাপ হওয়া


ঢাকা ডিজাইনার এই তিনটি বিষয়কে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করে এবং ডিজাইন অনুযায়ী কাজ ডেলিভারি করে। 
আর সবচেয়ে ভালো খবর হচ্ছে, আপনার দরকারে আমাদের বেশি খুঁজতেও হবে না। যে কোন সমস্যায় একটা ফোন নাম্বারে যোগাযোগ করলেই আমাদের খুঁজে পাবেন।

 

ঢাকা ডিজাইনারের শুরুটা কিভাবে?

ঢাকা ডিজাইনার কিভাবে আজকের অবস্থায় আসলো, আমরা নিজেরাও আসলে জানি না। ২০১১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে oDesk এবং Elance নামে দুটো ফ্রিল্যান্স প্লাটফর্মে ডিজাইনিং আউট-সোর্স কাজ শুরু করার মধ্য দিয়ে Dhaka Designer এর যাত্রা শুরু করে। প্রথম তিন বছর আমরা শুধুমাত্র দেশের বাইরের কাজই করছিলাম। আর অফিস? আমাদের অফিস ছিল বুয়েটের ডক্টর এম এ রশীদ হলের ৩০০৬ নম্বর রুম। অফিসের ছিল শুধুই ৪টা কম্পিউটার। 

২০১৪ সালে প্রথম ফর্মাল অফিস এবং কো-ফাউন্ডার নিয়ে ঢাকার শ্যামলীতে কাজ শুরু করি আমরা। সেই থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন ছোট-বড় দেশি ও বিদেশি কাজ আমরা করেছি। টিম মেম্বার ২জন থেকে ততদিনে হয়েছে ২০ জন। অফিসের সাইজও ১২০ স্কয়াফিট থেকে হল ২৪০০ স্কয়ারফিট।
 
২০১৬ সালে হসপিটাল ডিজাইনের জন্য দেশের বাইরের একটা টিম আসে আমাদের আদাবরে অফিসে। আমাদের অফিস তখন ছিল একটা বিল্ডিং এর ছয় তলায় এবং সেই বিল্ডিং এ লিফট ছিল না। বিদেশি টিম মেম্বাররা বেশ বয়স্ক ছিলেন। তাঁদের ভিজিটের পর আমরা আসলে ভীষণ লজ্জা পেয়েছিলাম। ফলাফল: দ্রুত আমরা বনানীতে একটা চমৎকার লোকেশনে শিফট করি। সেই হসপিটালের কাজ আমরা না পেলেও পরবর্তীতে ঐ টিমের সাথে আমরা অন্য অনেকগুলো কাজ করেছি। 

২০১৭ থেকে ২০২০ পর্যন্ত তিন বছরে আমরা বুঝতে পারি ডিজাইনের পাশাপাশি কন্সট্রাকশনেও আমাদের মনোযোগ দেয়া দরকার। ইতোমধ্যেই আমরা কোথাও পাইলিং এর কাজ করেছি, কোথাও রেনোভেশান, কোথাও বা কনট্রাক্টর হিসেবে কাজ করেছি। আমাদের এত যত্ন নিয়ে করা ডিজাইন শুধু সুপারভিশন এবং কোয়ালিটি কন্ট্রোলের অভাবে বারবার নষ্ট হচ্ছিল। 

এখন আমাদের মেইন টার্গেট হল ডিজাইন অনুযায়ী কন্সট্রাকশন নিশ্চিত করা। আর সেটা নিশ্চিত করার জন্য আমরা তৈরি করেছি বিভিন্ন এংগেজমেন্ট প্ল্যান এবং প্রাইসিং অপশন। আপনার মূল্যবান কন্সট্রাকশনের জন্য

 

👉🏽 বাজেট

👉🏽 কোয়ালিটি

👉🏽 টাইমফ্রেম

 

এই তিনটি জিনিস ম্যানেজ করার ইচ্ছে নিয়েই আমাদের এই পথচলা। 

আমরা যেভাবে কাজ করি 

I'm a paragraph. Click here to add your own text and edit me. It’s easy. Just click “Edit Text” or double click me to add your own content and make changes to the font. Feel free to drag and drop me anywhere you like on your page. I’m a great place for you to tell a story and let your users know a little more about you.

This is a great space to write a long text about your company and your services. You can use this space to go into a little more detail about your company. Talk about your team and what services you provide. Tell your visitors the story of how you came up with the idea for your business and what makes you different from your competitors. Make your company stand out and show your visitors who you are.